মাছের খাদ্য তৈরি ও ব্যবস্থাপনা

বিশ্বের জনসংখ্যর বৃদ্ধির পাশাপাশি মৎস্য জাত খাদ্যের সরবরাহর বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং এ বৃদ্ধির হার যথাক্রমে ১.৭% ও ৩.২% (সময়কাল ১৯৬১ হতে ২০০৯ বিবেচনায়)।


তৈরি করেছেন সর্বশেষ সংষ্করণ: ১৪-মে-২৩

এই কোর্সে অন্তর্ভুক্ত

  • 17 লেকচার
  • ট্যাবলেট এবং ফোনে ব্যবহার যোগ্য
  • সনদপত্র

এই কোর্সে শিক্ষার্থীরা কী শিখবে?

মাছের খাদ্য পরিচিতি
বাংলাদেশে চাষকৃত মাছের খাদ্য ও খাদ্যাভ্যাস
মাছের প্রাকৃতিক খাদ্য ও তার প্রয়োজনীয়তা
প্রাকৃতিক খাদ্যের উপস্থিতি
খাদ্য শৃঙ্খল ও পরিবেশ
কৃত্রিম (প্রক্রিয়াকৃত) খাদ্য: উৎস ও ব্যবহার
খাদ্য ও পরিবেশ
স্থানীয়ভাবে সহজ প্রাপ্য মৎস্যখাদ্য উপকরণ এবং তার পুষ্টিগুণ
খাদ্য উপকরণ ও খাদ্য প্রস্তুত
মৎস্য খাদ্য তৈরির সূত্র
অপুষ্টি উপাদান ও অপুষ্টিজনিত রোগ
খাদ্য প্রস্তুত প্রণালী
খাদ্যের কার্যকারিতা ও এফসিআর
খাদ্য প্রয়োগের বিবেচ্য বিষয় ও খাদ্য প্রয়োগ পদ্ধতি
মাছ ও চিংড়ির সম্পূরক খাদ্য প্রস্তুত ও গুদামজাতকালীন সতর্কতা
স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে মৎস্য খাদ্য তৈরি, প্যাকেজিং ও সংরক্ষণ (গুদামজাতকরণ)
মৎস্য খাদ্য তৈরির মেশিন ও তার বিভিন্ন অংশের পরিচিতি
খাদ্যের প্রক্সিমেট বিশ্লেষণ
মৎস্য খাদ্য আইন ও বিধিমালা

পাঠ্যসূচি

বিস্তৃত করুন

17 লেকচার

১. মাছের খাদ্য পরিচিতি 1 লেকচার
২. বাংলাদেশে চাষকৃত মাছের খাদ্য ও খাদ্যাভ্যাস 1 লেকচার
৩. মাছের প্রাকৃতিক খাদ্য ও তার প্রয়োজনীয়তা 1 লেকচার
৪. প্রাকৃতিক খাদ্যের উপস্থিতি 1 লেকচার
৫. খাদ্য শৃঙ্খল ও পরিবেশ 1 লেকচার
৬. কৃত্রিম (প্রক্রিয়াকৃত) খাদ্য: উৎস ও ব্যবহার 1 লেকচার
৭. খাদ্য ও পরিবেশ 1 লেকচার
৮. স্থানীয়ভাবে সহজ প্রাপ্য মৎস্যখাদ্য উপকরণ এবং তার পুষ্টিগুণ 1 লেকচার
৯. খাদ্য উপকরণ ও খাদ্য প্রস্তুত 1 লেকচার
১০. মৎস্য খাদ্য তৈরির সূত্র 0 লেকচার
১১. অপুষ্টি উপাদান ও অপুষ্টিজনিত রোগ 1 লেকচার
১২. খাদ্য প্রস্তুত প্রণালী 1 লেকচার
১৩. খাদ্যের কার্যকারিতা ও এফসিআর 1 লেকচার
১৪. খাদ্য প্রয়োগের বিবেচ্য বিষয় ও খাদ্য প্রয়োগ পদ্ধতি 1 লেকচার
১৫. মাছ ও চিংড়ির সম্পূরক খাদ্য প্রস্তুত ও গুদামজাতকালীন সতর্কতা 1 লেকচার
১৬. স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে মৎস্য খাদ্য তৈরি, প্যাকেজিং ও সংরক্ষণ (গুদামজাতকরণ) 1 লেকচার
১৭. মৎস্য খাদ্য তৈরির মেশিন ও তার বিভিন্ন অংশের পরিচিতি 1 লেকচার
১৮. খাদ্যের প্রক্সিমেট বিশ্লেষণ 1 লেকচার
১৯. মৎস্য খাদ্য আইন ও বিধিমালা 0 লেকচার
২০. কুইজ 1 লেকচার

বর্ণনা

পৃথীবিতে প্রতিনিয়ত জনসংখ্যা বাড়ছে, বাড়ছে মানুষের খাদ্যের চাহিদা। বিশ্বে ১৯৯০ সালে জনসংখ্যা চিল ৫৩০ কোটি যা বেড়ে বর্তমানে প্রায় ৭৫০ কোটিতে উপনিত হয়েছে। এভাবে জন সংখ্যা বাড়তে থাকলে বিশ্ব খাদ্য সংস্থার মতে আগামি ২০৩০ সালে প্রায় ৮৬০ কোটি মানুষের খাদ্যের সংস্থান করতে হবে। একটি পরিসংখ্যানে দেখা যায় বিশ্বে প্রতিদিন গড়ে ২.৯৬ লক্ষ নতুন শিশু জন্ম গ্রহণ করে এবং ১.২২ লক্ষ বিভিন্ন বয়সের মানুষ নানাবিধ কারণে মারা যায়। এ হিসাবে প্রতি দিন গড়ে ১.৭৪ লক্ষ মানুষ। অর্থাৎা বছরে ৪.৯৭ কোটি নতুন জনসংখ্যা যুক্ত হয় বিদ্যমান জনসমুষ্টির সাথে। বাংলাদেশ বিশ্বের অন্যতম ঘনবসতির দেশ, জনসংখ্যা বৃদ্ধির চাপটাও এখানে বেশি। মানুষ জন্ম গ্রহণের পরে তাঁর বেচে থাকার জন্য প্রথম প্রয়োজন হয় খাদ্যের; এর পরে বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা ইত্যাদির। মানুষের খাদ্য উপকরণের মধ্যে মাছের একটি বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। পৃথিবীর অধিকাংশ মানুষের প্রাণিজ আমিষের প্রধান উৎস্য মাছ। মাছ তুলনামূলক স্বল্প মুল্যে পাওয়া যায়, এতে আছে সহজ পাচ্চ, উন্নতগুণগতমানের আমিষ। মানবদেহে যার কোন ক্ষতিকর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নাই। এতে আরো রয়েছে বিভিন্ন প্রকার দরকারি ভিটামিন, গুরুত্বপূর্ণ খনিজলবণ এবং অত্যাবশ্যকিয় তৈল উপাদান (Essential fatty acids)। মাছ বিশেষ করে স্বল্প ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোর কোটি কোটি জনগণের প্রাণিজ আমিষের চাহিদা পূরণে বিশেষ ভূমিকা রাখে এবং প্রাণিজ আমিষের প্রায় ৬০% এর অধিক যোগান আসে মাছ থেকে। এদেশগুলোতে দরিদ্র জনস্যাখ্যার বসবাস বেশি, তাঁরা পুষ্টিস্বল্পতা (Malnourished)সমস্যায় জরজরিত এবং তাদের অধিক মূল্যের বিকল্প পুষ্টি সমৃদ্ধ খাদ্য (Alternative nutrient-rich foods) উপকরণ যেমন মাংশ, দুধ, ডিম বা ফল-মূল কেনার যথেষ্ট সামর্থ নাই। বিশ্বের আগামী দিনের প্রাণিজ আমিষের চাহিদা পূরণে মাছের বিশেষ ভূমিকা থাকবে কারণ মাছের খাদ্য মাংশে রুপান্তরের বিশেষ যোগ্যতা রয়েছে (Fish are super efficient at turning feed into biomass), বিশেষ করে অন্যন্য প্রাণিজ আমিষ সরবরাহকারী প্রাণী গরু-ছাগল, হাঁস-মূরগী ও শুকরে তুলনাই (চার্ট ১)। বিভিন্ন প্রজাতির মাছের খাদ্য রুপান্তর হার সর্ব নি¤œ হওয়ায় সমপরিমাণ প্রাণিজ আমিষের উৎপাদনে সবচেয়ে কম খাদ্য উপকরণ ব্যবহার মাছই স্থায়িত্বশীল (Sustainable) উৎপাদন নিশ্চিত করবে।

সর্বমোট ভিজিটর

৭০০২৫